1. fauzursabit135@gmail.com : S Sabit : S Sabit
  2. sizulislam7@gmail.com : sizul islam : sizul islam
  3. mridha841@gmail.com : Sohel Khan : Sohel Khan
  4. multicare.net@gmail.com : অদেখা বিশ্ব :
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন

শিক্ষাবান্ধব চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মঞ্জুরুল হক

সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
দরিদ্র কিশোরী পড়ালেখার দায়িত্ব নিয়েছেন কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মঞ্জুরুল হক। ছবি- সংগৃহীত
কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম মঞ্জুরুল হকের সহযোগিতায় বাল্যবিবাহ থেকে মুক্তি পেয়ে শিক্ষার সুযোগ পেলো কিশোরী রানু (এটি তার ছদ্মনাম)। পড়ালেখার খরচ চালাতে না পেরে দরিদ্র পিতা মাতা রানুর বিবাহ ঠিক করে। পড়ালেখার প্রতি আগ্রহ থাকায় কিন্তু কোন উপায় না পেয়ে তার মাথায় আসে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগিতা নেয়া। সেমতে রানু একদিন চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মঞ্জুরুল হকের কার্যালয়ে উপস্থিতি হয়ে তার পড়ালেখা করার আগ্রহের কথা জানান। শিক্ষাবান্ধব উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদয় তাৎক্ষনিক তার লেখাপড়ার সকল দায়িত্ব নিয়ে নেন। এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মঞ্জুরুল হক তার অফিসিয়াল ফেসবুক ওয়ালে লেখেন-
মাস দেড়েক আগের ঘটনা। হঠাৎ একটি মেয়ে আমার অফিসে ঢুকে সালাম দিয়ে সামনে এসে দাঁড়ালো। কাঁপা কাঁপা গলায় বললো, স্যার একটা কথা বলতে চাই, সাহস দিলে বলবো। বললাম, নির্দ্বিধায় বলো কী বলতে চাও। তারপর বলে চললো; স্যার, আমি যে এখানে এসেছি আমার বাবা-মা কিন্তু জানে না। স্যার, আমি এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী। …. স্কুলে পড়ি। আমার পরিবার খুব গরীব। আমার পড়ালেখা চালানোর সামর্থ্য তাদের নেই। তাই তারা আমাকে বিয়ে দিয়ে দিতে চায়। মেয়েটি খুব কাতর স্বরে কথাগুলো বলে যাচ্ছিলো। তারপর বললো, স্যার আমি এখন বিয়ে বসতে চাই না, আমি পড়ালেখা করতে চাই। আপনি আমাকে বাঁচান। বুঝতে অসুবিধা হলো না, পড়ালেখার প্রতি মেয়েটার প্রচণ্ড আগ্রহ আছে। রোল নাম্বার জানতে চাইলে বললো ০৮। তার মানে, নিঃসন্দেহে ভালো ছাত্রী। বললাম, তোমার বাবা-মা এখন তোমাকে বিয়ে দিতে পারবে না। সে দায়িত্ব আমি নিলাম। এরপর তারা তোমার বিয়ের উদ্যোগ নিলে আমাকে জানাবে। আমি তাদের সাথে কথা বলবো। তারপর তাকে বললাম, এখন তোমার জন্য কী করতে হবে বলো? তোমার পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়ার জন্য যা যা করণীয় আমি করবো। মেয়েটি তার হাতের লেখা একটা কাগজ আমার দিকে এগিয়ে দিলো। বললো, স্যার স্কুলের বেতনটা মওকুফের ব্যবস্থা করে দিলে আমি পড়ালেখা চালিয়ে যেতে পারবো। এ ফাঁকে বলে নিই, মেয়েটি যে স্কুলে পড়ে, আমি আবার পদাধিকারবলে সে স্কুলের সভাপতি! সাথে সাথে আবেদনের উপর লিখে দিলাম, “বেতন মওকুফ করা হলো”। তাৎক্ষণিক ফোন করে তা স্কুলের প্রধান শিক্ষককে জানিয়ে দিলাম। তারপর বললাম, আর কী করতে হবে বলো? যদিও জানি, এমন দরিদ্র পরিবারের একটি মেয়ে, যার পিছনে তার পিতার একটি পয়সাও খরচ করার সামর্থ্য নাই, তাকে এ ধরনের প্রশ্ন করা অবান্তর। ওর আড়ষ্টতা দেখে বুঝলাম, বলতে চাইলেও হয়তো ওর সাহসে কুলাচ্ছে না। এরপর আমি নিজেই বললাম, তোমার পরীক্ষার ফি লাগবে না? বললো, স্যার লাগবে। আমি বললাম, তোমার পরীক্ষার ফি আমি দেবো। তোমার বই-খাতা-কলম যা যা লাগবে আমাকে বলো, আমি সব ব্যবস্থা করে দেবো। যখনি যা লাগবে আমার কাছ থেকে এসে নিয়ে যাবে। এরপর যা ঘটলো তার জন্য আমি মোটেও প্রস্তুত ছিলাম না। মেয়েটির দু’চোখ বেয়ে অঝোর ধারায় অশ্রু প্রবাহিত হতে লাগলো। বললো, স্যার আপনার কাছ থেকে এতোটা সহযোগিতা পাবো ভাবি নাই। বললাম, কোনো চিন্তা করো না। তুমি ভালোমতো পড়ালেখা চালিয়ে যাও। তুমি তোমার বাবা-মাকে দেখিয়ে দাও, তুমি তাদের দায় নও, তাদের সম্পদ। দু’দিন আগে মেয়েটি অফিসে এসেছিলো। বললো, স্যার এসাইনমেন্টের জন্য কিছু কাগজ আর একটি জ্যামিতি বক্স দরকার। আমার স্টাফকে ডেকে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা করে দিলাম। পড়ালেখা কেমন চলছে জানতে চাইলে বললো, ভালো। বিয়ের বিষয়ে বাবা-মা আর কিছু বলে কিনা জিজ্ঞেস করলে বললো, আপাতত বলে না। এরপর বললাম, ভালো করে পড়ালেখা করো, তোমাকে ভালো রেজাল্ট করতে হবে। সে “জ্বি স্যার” বলে এক বাক্স কাগজ আর জ্যামিতি বক্স নিয়ে সালাম দিয়ে বিদায় নিলো। এ ছোট বোনটি, যে কিনা পাহাড়সম প্রতিকূলতা ডিঙিয়ে বাল্য বিয়ের অভিশাপ থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে, দারিদ্র্যের চরম কষাঘাতকে জয় করে দৃপ্ত পায়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চায়, তার জন্য একরাশ শুভকামনা।
শুভকামনায়ঃ
উপজেলা নির্বাহী অফিসার, চৌদ্দগ্রাম।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

Theme Customized BY LatestNews