1. fauzursabit135@gmail.com : S Sabit : S Sabit
  2. sizulislam7@gmail.com : sizul islam : sizul islam
  3. mridha841@gmail.com : Sohel Khan : Sohel Khan
  4. multicare.net@gmail.com : অদেখা বিশ্ব :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৯:৪৪ পূর্বাহ্ন

মেডিক্যাল চেকআপের নামে ভিডিও ধারণ করে নারীদের ব্ল্যাকমেইল

নিজস্ব সংবাদদাতা
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

পার্টটাইম চাকরি ও আকর্ষণীয় বেতন দেওয়ার কথা বলে ভার্চুয়াল মেডিক্যাল চেকআপের নামে ভিডিও ধারণ করে নারীদের ব্ল্যাকমেইলের অভিযোগে এক তরুণকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

আল ফাহাদ (১৯) নামের এই তরুণ ভুক্তভোগী নারীদের পাঁচ শতাধিক ভিডিও ও গোপন ছবি সংগ্রহ করে ব্ল্যাকমেইল করে আসছিলেন। তিনি বিভিন্ন কম্পানির নাম ব্যবহার করে অ্যাপসের মাধ্যমে নারীকণ্ঠে চাকরিপ্রত্যাশীদের সঙ্গে আলাপ করে আকৃষ্ট করতেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বাহিনীটির লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

গত বুধবার রাতে গুলশান থানাধীন নদ্দা এলাকা থেকে ফাহাদকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব সদর শাখার গোয়েন্দা ও র‌্যাব-১-এর একটি দল। এ সময় তাঁর কাছ থেকে ৪০৩ পিস ইয়াবা, মোবাইল ফোন, ছয়টি সিম, এক্সটারনাল মেমোরি কার্ড ও দুটি লেন্সসহ ক্যামেরা জব্দ করা হয়। ফাহাদ নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার মো. রুবেল মিয়ার ছেলে।

খন্দকার আল মঈন বলেন, “করোনার সময়ে দেশে বিভিন্ন কার্যক্রম ভার্চুয়ালি করা হয়েছে। এই ভার্চুয়াল মাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে এক শ্রেণির প্রতারক বিভিন্ন শ্রেণির নারীদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। গুগল ও উইকিপিডিয়ার মতো প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেবে বলে অনলাইনে ‘ভার্চুয়াল মেডিক্যাল স্ক্যানিং’ করানোর নামে প্রতারণার ফাঁদ পেতেছিল ফাহাদ। মূলত সে এই পরীক্ষা করার নামে নারীদের ‘গোপন ভিডিও’ ধারণ করত। এরপর সেই ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে প্রতি ভুক্তভোগীর কাছ থেকে দুই থেকে পাঁচ হাজার টাকা আদায়সহ নিজের বিভিন্ন স্বার্থ হাসিল করত। ফাহাদ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অনেক নারীর সঙ্গে তার প্রতারণা করার বিষয়টি স্বীকার করেছে। ওই সব ছবি ও ভিডিও র‌্যাব পেয়েছে। ”

র‌্যাব জানায়, ফাহাদ সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন পেজ ও গ্রুপে বিভিন্ন আইডির মাধ্যমে সদস্য হতেন। সেসবের কোনো কোনো পেজ বা গ্রুপের সদস্যসংখ্যা দুই লাখেরও বেশি। পেজগুলোতে তিনি দেশি-বিদেশি সংস্থায় উচ্চ বেতনে পার্টটাইম চাকরি দেওয়ার অফার দিতেন। ফলে অনেকেই তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করত। সেখান থেকে মেয়ে প্রার্থী নির্বাচন করতেন ফরহাদ। এসএসসি থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত পড়ুয়াদের টার্গেট করে এক থেকে তিন ঘণ্টা কাজ করলে ৬০০ থেকে হাজার টাকা পাওয়ার বিজ্ঞাপন দিতেন তিনি। আগ্রহীদের ৩৫০ থেকে ৫০০ টাকার বিনিময়ে রেজিস্ট্রেশন করতেন।

র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক বলেন, ‘মোবাইলে বিশেষ অ্যাপসের মাধ্যমে সে নারীকণ্ঠে ক্লায়েন্ট হিসেবে চাকরিপ্রার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করত। গুগল ও উইকিপিডিয়ার মতো প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে বলে জানাত। আবার কখনো কোনো কম্পানির রিক্রুটিং অফিসার হিসেবে আলাপ করত। আগ্রহী নারীরা চ্যাটিং অ্যাপসের মাধ্যমে ভিডিওকলে যুক্ত হতো নারীকণ্ঠের সঙ্গে (ফাহাদ)। কিন্তু সে নিজের মোবাইল ফোনের ক্যামেরা বন্ধ রেখে কথা চালিয়ে যেত এবং মেডিক্যাল পরীক্ষা নেওয়ার নামে ভিকটিমদের গোপন ভিডিও ধারণ করত। পরীক্ষার জন্য অসাবধানতাবশত খোলামেলা ছবি ও ভিডিও দিলে ফাহাদ সেগুলো রেকর্ড করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করার ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা দাবি করত। এভাবে সে শতাধিক নারীকে ব্ল্যাকমেইল করেছে। এই নারীদের কয়েকজন গুলশান, মতিঝিলসহ বিভিন্ন থানার পাশাপাশি র‌্যাবের কাছে অভিযোগ করেছে। ’

গ্রেপ্তারের পরে জিজ্ঞাসাবাদে ফাহাদ জানান, তিনি সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। ২০১৭ সাল থেকে ফেসবুক ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিষয়ে জ্ঞান নিতে থাকেন। পরে অ্যাপসের মাধ্যমে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা শুরু করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

Theme Customized BY LatestNews