1. fauzursabit135@gmail.com : S Sabit : S Sabit
  2. sizulislam7@gmail.com : sizul islam : sizul islam
  3. mridha841@gmail.com : Sohel Khan : Sohel Khan
  4. multicare.net@gmail.com : অদেখা বিশ্ব :
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৫:৩৩ অপরাহ্ন

আমাদের কৃষ্ণা রানী সরকার

ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২
কৃষ্ণা রানী সরকার।
 টাংগাইল-এর মেয়ে  কৃষ্ণা, মাতা শ্রী নমিতা রানী এবং পিতা শ্রী বাসুদেব, গ্রামঃ-উত্তর পাথালিয়া, ইউনিয়নঃ-নগদা শিমলা, গোপালপুর। বাবার অভাবের সংসারে খেয়ে না খেয়ে বেড়ে উঠতে লাগল “কৃষ্ণা”। সাধারণত শৈশব থেকেই মেয়ে শিশুরা পুতুল, হাঁড়ি-পাতিল, কুলা এসব নিয়ে খেলা করে থাকে। কিন্তু কৃষ্ণা ব্যস্ত থাকতো ভাইদের সাথে সারাদিন সাইকেল, ডাংগুলি আর ফুটবল নিয়ে। কৃষ্ণার এসব কাণ্ড দেখে গ্রামের লোকেরা নানা ধরণের কথা বলতে লাগল। কৃষ্ণার মা নীরবে হজম করতেন সে সব কথা। মেয়ের ইচ্ছেকে প্রাধান্য দিয়ে তাকে উৎসাহ যোগাতেন তিনি। কিন্তু স্বপ্নেও ভাবেননি মেয়ে তার এতদূর যাবে।
কৃষ্ণা আজ স্থানীয়, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নেতৃত্ব দিচ্ছে। কিন্তু এই অবস্থানে আসতে কত কাঠখড় তাকে পোড়াতে হয়েছে সে হিসেব পর্দার আড়ালেই রয়ে গেছে। সে যখন নিজ গ্রামে খেলতো তখন প্রতিবেশীরা বাড়ির উপরে এসে অকথ্য ভাষায় বকাঝকা করে যেতো। তারা ভাবতো কৃষ্ণার সাথে মিশলে অন্য মেয়েরা নষ্ট হয়ে যাবে।
কৃষ্ণার মা যখন সফল জননী হিসেবে উপজেলায় শ্রেষ্ঠ পদক পাওয়ার পর জেলায় যাচ্ছিলেন তখন কৃষ্ণার মায়ের কাছে জানতে চাওয়া হয়- কৃষ্ণার সাথে ঘটে যাওয়া আপনার সাথে সবচেয়ে আনন্দ দায়ক / বেদনা দায়ক ঘটনাটি কী? মূহুর্তেই তাঁর চোখ থেকে টপটপ করে পানি গড়িয়ে পড়তে লাগল। তিনি কান্না বিজড়িত কণ্ঠে বলতে লাগলেন, একদিন প্রতিবেশীরা প্রচণ্ড বকেছিল অকথ্য ভাষায়। আমি সেদিন কিছুতেই সহ্য করতে পারছিলাম না। আমি রাগে, ক্ষোভে দৌঁড়ে গিয়ে বটি নিয়ে বসি। এরপর কৃষ্ণার বলটাকে কুটিকুটি করে কেটে ফেলি। কাটার পর যখন ওর কান্না দেখি তখন মনে হলো আমি আমার হৃৎপিণ্ড কেটে কুটিকুটি করেছি। ততক্ষণে মেয়ের চোখ থেকে এক নদী অশ্রু গড়িয়েছে। মা-মেয়ে জড়াজড়ি করে প্রচণ্ড কাঁদলাম। চোখের পানি মুছে কাল-বিলম্ব না করে সেদিনই তাকে বল কিনে এনে দিলাম। বল হাতে পেয়ে মেয়ে আমার কী যে খুশি হলো তা ভাষায় অবর্ণনীয়।
এই ঘটনার কিছুদিন পর শুরু হলো বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্ট। কৃষ্ণা খেলতে এলো উত্তর পাথালিয়া প্রাইমারি স্কুলের ছাত্রী হিসেবে সূতী ভি এম সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে। বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক জনাব গোলাম রায়হান বাপন-এর চোখে কৃষ্ণার নৈপুণ্যতা ধরা পড়ে। ততক্ষণে সারা গোপালপুরে কৃষ্ণা কৃষ্ণা রব উঠে গেছে। অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব আব্দুল লতিফ কৃষ্ণার বাড়িতে যান। তারপর পরিবারের সাথে কথা বলে কৃষ্ণাকে সূতি ভি এম স্কুলে ভর্তি এবং খেলাধুলার অনুশীলনের দায়িত্ব নেন। শুরু হলো কৃষ্ণার জীবনের নতুন অধ্যায়। দিনগুলো একদিকে যেমন ছিল আনন্দঘন অন্য দিকে তেমন চরম সংকটাপন্ন। কৃষ্ণার বাড়ি থেকে বিদ্যালয়ের দূরত্ব প্রায় ০৯ কিলোমিটার। ভোর পাঁচটা ৩০ মিনিটে উঠে খেয়ে না খেয়ে কৃষ্ণাকে যেতে হতো অনুশীলনের মাঠে।
দেশ আজ গর্বিত কৃষ্ণার মতো সন্তান পেয়ে। আপনারা শুধু আমাদের নন, আপনারা আজ সারা বাংলার সম্মান। শত বাধা-বিপত্তিকে অতিক্রম করেছো, কৃষ্ণা! স্যালুট তোমায়  আমরা আরও স্যালুট জানাই মারিয়া, মনিকা, শামছুন্নাহার,রুপনা, আঁখি, মাসুরা, শিউলি, সানজিদা, সিরাত, সাবিনাসহ দলের সবাইকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

Theme Customized BY LatestNews